top of page

#বঙ্গে_নবজাগরণের_নায়ক_চৈতন্যদেব ৷ (পোষ্টনং-১১)


#বঙ্গে_নবজাগরণের_নায়ক_চৈতন্যদেব ৷

(পোষ্টনং-১১)

(#পর্ব_৪_পোষ্টনং_১১)


#চৈতন্যভাগবত_প্রকাণ্ড_এবং

সুপাঠ্য গ্রন্থ ৷ চৈতন্যদেবের বাল্য-জীবনী সম্বন্ধে যে সব তথ্য বৃন্দাবনদাস এই গ্রন্থে পরিবেশন করেছেন তা যেমন স্বাভাবিক তেমনি উপাদেয়, তাতে করে দুরন্ত বালক নিমাইকে কারও চিনতে দেরী হয় না ৷ চৈতন্যভাগবতে সমসাময়িক সামাজিক অবস্থারও বহু সংবাদ পাওয়া যায় ৷ মধ্যযুগের বাঙালী সমাজে কি পূজা ও মঙ্গল গান নিয়ে মেতে থাকত,তখন টোলে কি ভাবে পড়ুয়ারা পড়াশুনা করত,মুসলমান ধর্ম ও সমাজের প্রভাব হিন্দু সমাজে কিরূপ ছড়িয়ে পড়েছিল-এসব বিষয়ে অামাদের জ্ঞানের প্রধান উৎস এই চৈতন্যভাগবত ৷ চৈতন্যদেবের সহজ-স্বাভাবিক জীবন-কথা চৈতন্যভাগবত থেকে অামরা জানতে পারি ৷ একালে যাকে বলে "মানব-রস", চৈতন্য-ভাগবতে তার অভাব নাই ৷ তাছাড়া বৃন্দাবনদাসের পয়ারও স্বচ্ছ এবং প্রাঞ্জল, এখানেই চৈতন্যভাগবত কাব্যের শ্রেষ্ঠত্ব ৷

#লোচনদাসের_চৈতন্য_মঙ্গল

বলতে গেলে চৈতন্যজীবনীর মধ্যে দ্বিতীয় গ্রন্থ ৷ (চৈতন্য-মঙ্গল নামে অার একটি জীবনী গ্রন্থ অাছে জয়ানন্দের তা পরবর্তীকালে রচনা সম্ভবত ১৫৫০ খ্রীঃ পরে ) লোচনদাসের চৈতন্যমঙ্গল সুখ্যাতি ও সমাদর লাভ করেছে ৷ লোচনদাসের চৈতন্যমঙ্গল কাব্য উপাদেয় ও সমাদৃত ৷

#শ্রীকৃষ্ণদাস_কবিরাজের_চৈতন্যচরিতামৃত_গুরুত্বের দিক থেকে চৈতন্য-জীবনীর মধ্যে অদ্বিতীয় গ্রন্থ ৷ মূলত তা কাব্যরসে তার পরিচয় নয়, সমস্ত মধ্যযুগের বাঙলা সাহিত্যে যদি কোনো বিশেষ গ্রন্থকে মহৎ বলতে হয়, তা হলে বলতে হবে কৃষ্ণদাস কবিরাজের "চৈতন্যচরিতামৃত" ৷ বিষয়-মাহাত্ম্যে, তথ্য-নিষ্ঠায়, সরল-প্রাঞ্জল বাক্য-গুণে, দর্শন, ইতিহাস ও কাব্যের অপরূপ সমন্বয়ে গৌরব অর্জন করেছে কৃষ্ণদাস কবিরাজের এই চৈতন্যচরিতামৃত গ্রন্থ ৷ বৈষ্ণবদের কাছে এটি প্রামাণিক গ্রন্থ ৷ এই গ্রন্থে নরদেহধারী প্রেমাবতারের মানবীয় প্রকৃতি মাঝে মাঝে সুপ্রকাশিতও হয়েছে ৷ কঠোর সংযমী সন্ন্যাসী ছিলেন শ্রীচৈতন্যদেব ৷ কারণ;—

#অাপনি_অাচরি_ধর্ম_সবারে_শিখায় ৷ অাপনি না কৈলে ধর্ম শিখান না যায় ॥" (চৈ;চ;)

মানব-সমাজের এই সমাজ-নীতি চৈতন্যদেব বিস্মৃত হননি একবারও, অাবার এই সন্যাসীরই

হৃদয়ে মায়ের সম্বন্ধে কী মধূর বেদনা;—

#তোমার_সেবা_ছাড়ি_অামি করিল সন্ন্যাস ৷ বাউল হইয়া অামি কৈল সর্বনাশ ॥ এই অপরাধ তুমি না লইহ অামার ৷ তোমার অধীন অামি পুত্র যে তোমার ॥"(চৈ;চ;)

এই রক্তমাংসে তৈরী মানুষের স্পর্শটিও কবিরাজ গোস্বামীর এই কাব্যে ক্ষণে ক্ষণে লাভ করা যায় ৷

1 view0 comments

Comments


Be Inspired
bottom of page